Tarashankar bandhyapadhya short story novel uponnas chotogolpo

তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়Tarashankar bandhyapadhya short story novel uponnas chotogolpo

 

 

জন্মসাল- ১৮৯৮ সালের ২৩ জুলাই।

 

পিতা মাতা- পিতা হরিদাস বন্দ্যোপাধ্যায় ও মাতা প্রভাবতী দেবী।

 

বংশপরিচয়- ১৮৯৮ সালে পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার লাভপুর গ্রামে জমিদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন এই বিশ্ববরেণ্য বাংলা সাহিত্যিক।

 

শিক্ষাজীবন- ১৯১৬ সালে লাভপুরের এইচ. ই স্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য তিনি কলকাতায় এসে প্রথমে সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজে ও পরে সাউথ সাবআর্বান(অধুনা আশুতোষ কলেজ) কলেজে ভর্তি হন।

 

ছদ্মনাম- কামন্দক, হাবুশর্মা।

 

রচনা সমগ্র-

 

উপন্যাস-

চৈতালি ঘূর্ণি (১৯৩২), পাষাণপুরী (১৯৩৩), নীলকণ্ঠ (১৯৩৩), রাইকমল (১৯৩৫), প্রেম ও প্রয়োজন (১৯৩৬), আগুন (১৯৩৮), ধাত্রীদেবতা (১৯৩৯), কালিন্দী (১৯৪০), গণদেবতা (১৯৪৩), মন্বন্তর (১৯৪৪), পঞ্চগ্রাম (১৯৪৪), কবি (১৯৪৪), সন্দীপন পাঠশালা (১৯৪৬), ঝড় ও ঝরাপাতা (১৯৪৬), অভিযান (১৯৪৬), সন্দীপন পাঠশালা (কিশোরপাঠ্য সংস্করণ, ১৯৪৮), পদচিহ্ন (১৯৫০), উত্তরায়ণ (১৯৫০), হাঁসুলীবাঁকের উপকথা (১৯৫১), তামস তপস্যা (১৯৫২), নাগিনী কন্যার কাহিনী (১৯৫২), আরোগ্য নিকেতন (১৯৫৩), চাঁপাডাঙার বৌ (১৯৫৪), পঞ্চপুত্তলি (১৯৫৬), বিচারক (১৯৫৭), সপ্তপদী (১৯৫৮), বিপাশা (১৯৫৯), রাধা (১৯৫৯), মানুষের মন (১৯৫৯), ডাকহরকরা (১৯৫৯), মহাশ্বেতা (১৯৬১), যোগভ্রষ্ট (১৯৬১), না (১৯৬১), নাগরিক (১৯৬১), নিশিপদ্ম (১৯৬২), যতিভঙ্গ (১৯৬২), কান্না (১৯৬২), কালবৈশাখী (১৯৬৩), একটি চড়–ইপাখি ও কালো মেয়ে (১৯৬৩), জঙ্গলগড় (১৯৬৪), মঞ্জরী অপেরা (১৯৬৪), সংকেত (১৯৬৪), ভুবনপুরের হাট (১৯৬৪), বসন্তরাগ (১৯৬৪), স্বর্গমর্ত্য (১৯৬৫), বিচিত্রা (১৯৬৫), গন্না বেগম (১৯৬৫), অরণ্যবহ্নি (১৯৬৬), হীরাপান্না (১৯৬৬), মহানগরী (১৯৬৬), গুরুদক্ষিণা (১৯৬৬), শুকসারী কথা (১৯৬৭), শক্করবাঈ (১৯৬৭), মণিবৌদি (১৯৬৯), ছায়াপথ (১৯৬৯), কালরাত্রি (১৯৭০), রূপসী বিহঙ্গিনী (১৯৭০), অভিনেত্রী (১৯৭০), ফরিয়াদ (১৯৭১), শতাব্দীর মৃত্যু (১৯৭১), কিষ্কিন্ধ্যা কাণ্ড (কিশোর উপন্যাস, ১৯৭২)।

 

ছোটোগল্প-

ছলনাময়ী (১৯৩৭), জলসাঘর (১৯৩৮), রসকলি (১৯৩৯), তিন শূন্য (১৯৪২), প্রতিধ্বনি (১৯৪৩), বেদেনী (১৯৪৩), দিল্লী কা লাড্ডু (১৯৪৩), যাদুকরী (১৯৪৪), স্থলপদ্ম (১৯৪৪), তেরশো পঞ্চাশ (১৯৪৪), প্রসাদমালা (১৯৪৫), হারানো সুর (১৯৪৫), ইমারত (১৯৪৭), রামধনু (১৯৪৭), শ্রীপঞ্চমী, কামধেনু (১৯৪৯), মাটি (১৯৫০), শিলাস্থান (১৯৫২), বিস্ফোরণ (১৯৫৫), কালান্তর (১৯৫৬), বিষপাথর (১৯৫৭), রবিবারের আসর (১৯৫৯), পৌষলক্ষ্মী (১৯৬১), আলোকাভিসার, চিরন্তনী (১৯৬২), অ্যাক্সিডেন্ট (১৯৬২), তমসা (১৯৬৩), আয়না (১৯৬৩), চিন্ময়ী (১৯৬৪), একটি প্রেমের গল্প (১৯৬৫), তপোভঙ্গ, দীপার প্রেম (১৯৬৬), নারী রহস্যময়ী (১৯৬৭), পঞ্চকন্যা (১৯৬৭), শিবানীর অদৃষ্ট (১৯৬৭), গোবিন সিংয়ের ঘোড়া (১৯৬৮), জয়া (১৯৬৮), এক পশলা বৃষ্টি (১৯৬৯), মিছিল (১৯৬৯), উনিশশো একাত্তর (১৯৭১)।

 

নাটক-

কালিন্দী (১৯৪২), দুইপুরুষ (১৯৪৩), পথের ডাক (১৯৪৩), বিংশ শতাব্দী (১৯৪৫), দ্বীপান্তর (১৯৪৫), যুগবিপ্লব (১৯৫১), কবি (১৯৫৭), কালরাত্রি (১৯৫৭), সংঘাত (১৯৬২), আরোগ্য নিকেতন (১৯৬৮)

 

প্রবন্ধ সংকলন-

সাহিত্যের সত্য (১৯৬১), ভারতবর্ষ ও চীন (১৯৬৩), রবীন্দ্রনাথ ও বাংলার পল্লী (১৯৭১)।

 

স্মৃতিকথা-

আমার কালের কথা (১৯৫১), বিচিত্র স্মৃতিকাহিনী (১৯৫৩), আমার সাহিত্য জীবন, প্রথম খণ্ড (১৯৫৩), কৈশোর স্মৃতি (১৯৫৬), আমার সাহিত্য জীবন, দ্বিতীয় খণ্ড (১৯৬২)

 

প্রহসন-

চকমকি (১৯৪৫)

 

ভ্রমণসাহিত্য-

মস্কোতে কয়েক দিন (১৯৫৯)

 

কাব্যগ্রন্থ-

ত্রিপত্র (১৯২৬)

 

পুরস্কার- শরৎস্মৃতি পুরস্কার (১৯৪৭), রবীন্দ্র পুরস্কার (১৯৫৫), জগত্তারিণী স্বর্ণপদক (১৯৫৬), সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার(১৯৫৬), জ্ঞানপীঠ পুরস্কার (১৯৬৭), পদ্মশ্রী (১৯৬২), পদ্মভূষণ(১৯৬৮)।

 

মৃত্যু- ১৯৭১ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর।

Author: username

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *